STORE

VIEW PRODUCTS

ADDED TO CART SUCCESSFULLY GO TO CART
  • Home arrow
  • Third Trimester arrow
  • গর্ভাবতী মায়েদের তৃতীয় ত্রৈমাসিকের জন্য ১০ টি গুরুত্বপূর্ন টিপস | Top 10 Tips for the Third Trimester of your Pregnancy in Bengali arrow

In this Article

    গর্ভাবতী মায়েদের তৃতীয় ত্রৈমাসিকের জন্য ১০ টি গুরুত্বপূর্ন টিপস | Top 10 Tips for the Third Trimester of your Pregnancy in Bengali

    Third Trimester

    গর্ভাবতী মায়েদের তৃতীয় ত্রৈমাসিকের জন্য ১০ টি গুরুত্বপূর্ন টিপস | Top 10 Tips for the Third Trimester of your Pregnancy in Bengali

    6 February 2024 আপডেট করা হয়েছে

    একজন গর্ভবতী মহিলার স্বাভাবিক গর্ভাবস্থা প্রায় 40 সপ্তাহ স্থায়ী হয়। সপ্তাহগুলিকে তিনটি ত্রৈমাসিকে ভাগ করা হয় এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকের মধ্যে গর্ভাবস্থার 28 থেকে 40 সপ্তাহ অন্তর্ভুক্ত। তৃতীয় ত্রৈমাসিক একজন গর্ভবতী মহিলার জন্য শারীরিক এবং মানসিক উভয়ভাবেই চ্যালেঞ্জিং হতে পারে। 37 সপ্তাহের শেষে, শিশুটিকে পূর্নাঙ্গ গঠিত হিসাবে বিবেচনা করা হয় এবং শিশুর জন্ম এর পর শুধুমাত্র সময়ের ব্যাপার। গর্ভাবস্থার চূড়ান্ত পর্যায়ে, তৃতীয় ত্রৈমাসিকের সময় কী হতে পারে তা জানা এবং বোঝা আপনার উদ্বেগ কমাতে সাহায্য করতে পারে।

    যদিও গর্ভাবস্থা একজন মহিলার জীবনের সবচেয়ে সুন্দর পর্যায়গুলির মধ্যে একটি হতে পারে, এটি কিছুটা জটিলও হতে পারে, বিশেষ করে প্রথমবার মায়েদের জন্য।

    তৃতীয় ত্রৈমাসিকের গর্ভাবস্থার লক্ষণগুলি কী কী? (What Are The Symptoms Of The Third Trimester Pregnancy in Bengali)

    আপনি সম্ভবত আপনার পেটের ভিতরে আপনার সন্তানের প্রচুর নড়াচড়া অনুভব করবেন। আপনার পেট বড় হওয়ার সাথে সাথে আপনি আপনার শরীরের পরিবর্তনগুলিও অনুভব করতে পারেন, যার মধ্যে রয়েছে:

    1. বমি বমি ভাব (Nausea)

    সকালের অসুস্থতা বিশেষত বমি বমি ভাব সাধারণত প্রথম ত্রৈমাসিকের পরে কমে যায়। যাইহোক, আপনি যদি যমজ বা একাধিক সন্তান ধারণ করছেন, তবে আপনি সন্তানের জন্ম না দেওয়া পর্যন্ত বমি বমি ভাব থাকতে পারে।

    2. মাথাব্যথা (Headache)

    আপনার তৃতীয় ত্রৈমাসিকের সময়, গন্ধ, ঘুমের অভাব, মানসিক চাপ, অতিরিক্ত গরম এবং অন্যান্য কারণগুলি মাথাব্যথা বা মাইগ্রেনের কারণ হতে পারে। নিয়মিত খাওয়া, ব্যায়াম এবং শয়নকালের রুটিন অনুসরণ করার চেষ্টা করুন এবং নিজেকে চাপমুক্ত করার জন্য কিছুটা প্রয়োজনীয় সময় দিন।

    3. ডায়রিয়া (Diarrhoea)

    আপনার শরীর প্রসবের জন্য প্রস্তুত হওয়ার সাথে সাথে মলদ্বার সহ আপনার শরীরের কিছু পেশী শিথিল হয়ে যেতে পারে, যা প্রি-লেবারডায়রিয়া নামে পরিচিত। আপনার খাদ্যের অতিরিক্ত ফাইবার বা এমনকি পেটের অন্য সমস্যা থেকেও ডায়রিয়া হতে পারে।

    4. পেটে ব্যথা (Abdominal achiness)

    আপনার লিগামেন্টগুলি আপনার ক্রমবর্ধমান পেট এর সঙ্গে বাড়তে থাকে তাই এর সাথে সাথে আপনি ক্র্যাম্প বা তীক্ষ্ণ ব্যথা অনুভব করতে পারেন।

    5. যোনিতে শিরশিরানি ভাব (Lightning crotch)

    যোনিদ্বারে শিরশিরানি বা তীব্র জ্বালা হঠাৎ, তীক্ষ্ণ ধাক্কার কারণে ঘটতে পারে, তবে এটির নিশ্চিত কারণ জানা যায় নি। যদিও, একটি তত্ত্ব অনুসারে, এটি শিশুর নাড়াচাড়া করার সময় আপনার যোনিদ্বারের স্নায়ুর উপর চাপ দেওয়ার কারণে হতে পারে যা জরায়ুর দিকে চলে যায়।

    6. ক্লান্তি (Fatigue)

    আপনি এই ত্রৈমাসিকে আরও ক্লান্ত বোধ করবেন কারণ গর্ভাবস্থা আপনার শরীরের উপর অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করতে পারে, তাই ভাল এবং ঘন ঘন খান, নিয়মিত ব্যায়াম করুন এবং গর্ভাবস্থার ঘুমের সমস্যাগুলি কমানোর চেষ্টা করুন।

    7. অম্বল (Heartburn)

    গর্ভাবস্থার শেষ কয়েক সপ্তাহে আপনার জরায়ু আপনার পাকস্থলীটিকে উপরের দিকে ঠেলে দিতে পারে, যার ফলে আপনার অম্বল হতে পারে।

    8. ব্র্যাক্সটন হিকস সংকোচন (Braxton hicks contraction)

    আপনি এই সময় অনিয়মিত শ্রোণী পেশী সংকোচনগুলি অনুভব করতে শুরু করবেন কারণ আপনার শরীর এভাবে প্রসবের জন্য ধীরে ধীরে প্রস্তুত হতে থাকে

    9. ভেরিকোজ ভেন (Varicose veins)

    আপনার শরীর অতিরিক্ত রক্ত পাম্প করার কারণে আপনার শরীরের নীচের অংশের বিশেষ করে পায়ের শিরাগুলি ফুলে উঠতে পারে। গর্ভাবস্থার পরে এগুলি ঠিক হয়ে যায়।

    স্ট্রেচ মার্ক হল ক্ষুদ্র লম্বা ডঃ যা গর্ভাবস্থায় প্রসারিত ত্বকে প্রদর্শিত হয় এবং সাধারণত জেনেটিক্সের ফলে হয়। এগুলি কমাতে, ভালো মানের ময়শ্চারাইজার ব্যবহার করুন।

    10. পিঠে ব্যথা (Backache)

    প্রেগন্যান্সি হরমোন আপনার জয়েন্টগুলোকে আলগা করে এবং আপনার ক্রমবর্ধমান পেট আপনার মাধ্যাকর্ষণ কেন্দ্রকে সামনের দিকে স্থানান্তরিত করে, যে কারণে আপনার পিঠে ব্যথা হতে পারে।

    11. অনিদ্রা (Insomnia)

    পায়ে ক্র্যাম্প, রাতে ঘন ঘনও প্রস্রাব পাওয়া এবং ব্যথা আপনার ঘুমে হস্তক্ষেপ করতে পারে। অনিদ্রা 75% গর্ভবতী মাকে প্রভাবিত করে।

    12. অদ্ভুত স্বপ্ন (Crazy dreams)

    গর্ভাবস্থার হরমোনের কারণে আপনার নির্ধারিত প্রসব তারিখের কাছাকাছি আপনার স্বপ্নগুলি আগের চেয়ে আরও প্রাণবন্ত এবং উদ্ভট বা অর্থহীন হয়ে উঠতে পারে। তবে, এরকম হওয়া স্বাভাবিক।

    13. ভুলে যাওয়া (Clumsiness)

    আপনার হরমোন লেভেল এর পরিবর্তন, আপনার মস্তিষ্কের উপরে কখনো কখনো প্রভাব ফেলতে পারে এবং এর কারণে আপনি বেখেয়ালি হতে পারেন বা মাঝে মাঝে জিনিস ভুলে যেতে পারে ।

    14. মূত্র নিয়ন্ত্রণের অভাব (Lack of bladder control)

    মূত্রাশয়ের উপর সমস্ত অতিরিক্ত ওজনের কারণে, এটির পেশিগুলি শিথিল হয়ে পড়ে এবং আপনি মুত্র নিয়ন্ত্রণ করতে সামান্য হলেও অসুবিধা বোধ করতে পারেন। তাই প্রতিদিন কেগেল ব্যায়াম করার চেষ্টা করুন।

    15. স্তন থেকে দুধ বেরোনো (Leaky breasts)

    এটি হতে পারে কারণ আপনার শরীর আপনার আগত সন্তানকে খাওয়ানোর জন্য প্রস্তুত হতে থাকে।

    16. ওজন বৃদ্ধি (Weight gain)

    আপনার প্রসবের তারিখের কাছাকাছি আসার সাথে সাথে আপনার ওজন বাড়তে পারে। যাইহোক, এই ত্রৈমাসিকে প্রায় আট থেকে দশ পাউন্ড বৃদ্ধি স্বাভাবিক।

    কখন আমার তৃতীয় ত্রৈমাসিকের বিষয়ে চিন্তা করা উচিত? (When Should I Worry About My Third Trimester in Bengali)

    যখন একটি শিশু আপনার জঠরে থাকে এবং তার ভূমিষ্ট হওয়ার সময় এগিয়ে আসতে থাকে, তখন প্রসব শুরু হওয়ার সময় আপনি সম্ভবত হাসপাতালে থাকবেন। প্রসবের দিন যত কাছে আসতে থাকে, আপনি প্রসবের মত কিছু উপসর্গ অনুভব করতে পারেন। এছাড়াও তৃতীয় ত্রৈমাসিকে গর্ভাবস্থার বিপদ লক্ষণগুলির জন্য সতর্ক থাকুন, যার মধ্যে রয়েছে:

    1. বেবি ড্রপিং (Baby dropping)

    আপনার গর্ভাবস্থার প্রায় 36 সপ্তাহ নাগাদ আপনার সন্তান আরো যোনিদ্বারের কাছে নিচে নেমে আসে এবং আপনার হাঁটাচলা করতে সমস্যা হতে পারে।

    2. যোনিদ্বার দিয়ে রক্ত নির্গমন (Bloody show)

    যোনি থেকে নির্গত শ্লেষ্মাযুক্ত গোলাপী বা বাদামী রক্ত ইঙ্গিত দেয় যে প্রসবের সময় আসন্ন বা প্রসব শুরু হতে চলেছে। আপনি আপনার মিউকাস প্লাগ লক্ষ্য করতে নাও করতে পারেন কিন্তু সেটা লক্ষ্য করার চেষ্টা করুন।

    3. শ্রোণী চাপ (Pelvic pressure)

    আপনার জরায়ু প্রসারিত এবং পাতলা হওয়ার কারণে কুঁচকির অংশে ক্র্যাম্পিং হতে পারে। এটি বহু ক্ষেত্রেই নির্দেশ করে যে আপনার প্রসব শুরু হয়ে যেতে পারে।

    4. শ্রমের সংকোচন (Labour contractions)

    ব্র্যাক্সটন হিক্সের সংকোচন, আপনি যত বেশি ঘোরাফেরা করবেন ততই এগুলি তীব্র হবে।

    5. জল ভাঙা (Water breaking)

    আপনি প্রসবের সময় হাসপাতালে থাকাকালীন এটি ঘটতে পারে।

    আপনার ডাক্তারকে কল করুন যদি আপনি প্রিটার্ম প্রসবের লক্ষণ বা নিম্নলিখিত দেরী গর্ভাবস্থার সতর্কতা লক্ষণগুলির মধ্যে কোনটি অনুভব করতে শুরু করেন:

    • যোনিপথে ভারী রক্তপাত
    • তীব্র যোনি ব্যথা
    • তলপেটে প্রচণ্ড ব্যথা
    • ১০১ ফারেনহাইটের বেশি জ্বর
    • হঠাৎ ওজন বেড়ে যাওয়া

    তৃতীয় ত্রৈমাসিকের সময় আপনার শিশুর কতটা বৃদ্ধি হয়? (How Much Does Your Baby Grow During The Third Trimester in Bengali)

    তৃতীয় ত্রৈমাসিকে আপনার শিশু অনেক বড় হবে, গর্ভাবস্থার ২৮ সপ্তাহে প্রায় ২.৫ পাউন্ড এবং ২৮ ইঞ্চি লম্বা থেকে শুরু করে ৪0 তম সপ্তাহে ৬ থেকে ৯ পাউন্ড এবং ১৯ থেকে ২২ ইঞ্চি লম্বা হবে। এছাড়াও, আপনার সন্তানের বৃদ্ধির foel সে নড়াচড়া আরম্ভ করবে এবং আপনি আপনার তলপেটে তার লাঠি বা হঠাৎ হঠাৎ ব্যথা অনুভব করতে পারেন। আপনার গর্ভাবস্থার তৃতীয় ত্রৈমাসিকের কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা হল:

    1. হাড় (Bones)

    গর্ভাবস্থার সাত এবং আট মাসে শিশুর তরুণাস্থি হাড়ে রূপান্তরিত হয়, তাই প্রচুর ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খেতে ভুলবেন না কারণ আপনার শিশু আপনার কাছ থেকে ক্যালসিয়াম পাবে।

    2. চুল, ত্বক এবং নখ (Hair, skin and nail)

    আপনার শিশুর আগের স্বচ্ছ ত্বক গর্ভাবস্থার ৩২ সপ্তাহের মধ্যে অস্বচ্ছ হয়ে যাবে। ৩৬ তম সপ্তাহে, আপনার শিশু ভার্নিক্স ত্যাগ করার সাথে সাথে চর্বি জমতে থাকে, এটি একটি মোমযুক্ত পদার্থ যা আপনার অ্যামনিওটিক তরল থেকে শিশুর ত্বককে রক্ষা করে।

    3. পরিপাকতন্ত্র (Digestive System)

    গর্ভাবস্থার শেষ সপ্তাহগুলিতে, মেকোনিয়াম বা শিশুর প্রথম মল, প্রধানত রক্তকণিকা, ভার্নিক্স এবং ল্যানুগো সমন্বিত, শিশুর অন্ত্রে তৈরি হতে শুরু করে।

    4. পাঁচটি ইন্দ্রিয় (Five senses)

    গর্ভাবস্থার ২৯ বা ৩0 সপ্তাহের কাছাকাছি, আপনার শিশুর স্পর্শ রিসেপ্টর সম্পূর্ণরূপে বিকাশ করবে। আপনার শিশুও পাঁচটি ইন্দ্রিয় থেকে সংকেত পাবে, আলো এবং অন্ধকার উপলব্ধি করবে, আপনি যা খাচ্ছেন তার স্বাদ গ্রহণ করবে এবং গর্ভাবস্থার ৩১ তম সপ্তাহের মধ্যে আপনার কণ্ঠস্বরের শব্দ শুনবে।

    5. মস্তিষ্ক (Brain)

    গর্ভাবস্থার শেষ ত্রৈমাসিকে, আপনার শিশুর মস্তিষ্ক আগের চেয়ে দ্রুত বৃদ্ধি পাবে, চোখের পলক ফেলা, স্বপ্ন দেখা এবং শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ সহ কিছু ক্ষমতা পরীক্ষা করবে।

    তৃতীয় ত্রৈমাসিকের গর্ভাবস্থার টিপস (Third Trimester Pregnancy Tips in Bengali)

    1. আপনার শিশুর নড়াচড়ার প্রতি মনোযোগী হন (Be attentive to your baby's movement)

    আপনি লক্ষ্য করতে পারেন যে আপনার শিশুর নড়াচড়ার পরিবর্তন হচ্ছে কারণ তারা সব সময় বেড়ে উঠছে। এছাড়াও, প্রতিটি শিশুর জাগ্রত এবং ঘুমানোর ধরণ আলাদা, তবে আপনি জানতে পারবেন আপনার জন্য স্বাভাবিক কী। এছাড়াও আপনি অনুভব করতে পারেন যে আপনার শিশুটি প্রসবের সময় এবং প্রসবের সময় নড়াচড়া করছে।

    2. তৃতীয়-ত্রৈমাসিকের প্রসবপূর্ব অ্যাপয়েন্টমেন্টগুলি সম্পর্কে পড়ুন (Read up about third-trimester antenatal appointments)

    আপনার তৃতীয়-ত্রৈমাসিক প্রসবপূর্ব অ্যাপয়েন্টমেন্টের সময়, আপনার ডাক্তার আপনার সাথে প্রসব বেদনা মোকাবেলা সহ প্রসব এবং জন্মের জন্য প্রস্তুতি সম্পর্কে কথা বলবেন। ডাক্তার আপনার শিশুর বৃদ্ধি পরীক্ষা করতে পারেন এবং প্রয়োজনে একটি আল্ট্রাসাউন্ডের ব্যবস্থা করতে পারেন।

    3. গর্ভাবস্থার উপসর্গগুলি সম্পর্কে সচেতন থাকুন যা আপনাকে কখনই উপেক্ষা করা উচিত নয় (Be aware of the pregnancy symptoms you should never ignore)

    প্রিক্ল্যাম্পসিয়া হল একটি গর্ভাবস্থার অবস্থা যা ঘটে যখন প্লাসেন্টা সঠিকভাবে কাজ করে না। এটি সাধারণত গর্ভাবস্থার দ্বিতীয়ার্ধে বা জন্মের পরপরই ঘটে। আপনি যখন আপনার নিয়মিত প্রসবপূর্ব পরীক্ষা করবেন, তখন আপনার ডাক্তার প্রিক্ল্যাম্পসিয়ার লক্ষণগুলি দেখবেন। যার লক্ষণগুলি আপনার প্রস্রাবে উচ্চ রক্তচাপ এবং প্রোটিন অন্তর্ভুক্ত করে। অ্যাপয়েন্টমেন্টের মধ্যে, গুরুতর মাথাব্যথা, ঝাপসা দৃষ্টি বা ফ্ল্যাশলাইট, বমি বা বমি বমি ভাব, তীব্র বুকজ্বালা এবং ফুলে যাওয়া হাত, মুখ ও পায়ের জন্য সতর্ক থাকা অপরিহার্য।

    4. ভাল খান (Eat well)

    আপনার গর্ভাবস্থার এই পর্যায়ে ভাল খাওয়া আপনার এবং আপনার শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য। প্রচুর আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খান, যা আপনাকে লোহিত রক্তকণিকা তৈরি করতে সাহায্য করে। লোহার উত্স সহ খাবার গ্রহণ করে আপনার আয়রন গ্রহণকে বাড়িয়ে তুলুন, যেমন চর্বিহীন মাংস, শাক সবজি এবং শক্তিশালী সিরিয়াল।

    5. কিছু স্ট্রেচিং করুন (Try some stretching)

    স্ট্রেচিং শেখার জন্য এটি একটি চমৎকার সময় যা আপনার শরীরের পেশী শিথিল করতে সাহায্য করবে এবং আপনার শরীরকে শিশুর জন্মের জন্য প্রস্তুত করবে। এছাড়াও মাঝে মাঝে স্ট্রেচ এবং নড়াচড়াও গর্ভাবস্থার সমস্যা যেমন পায়ে ক্র্যাম্প এড়াতে সাহায্য করতে পারে।

    6. আপনার পেট ম্যাসাজ করুন (Massage your belly)

    আপনি যদি অনুভব করেন আপনার পেটের মধ্যে আপনার সন্তানের নড়াচড়া ক্রমাগত অনুভব করতে পারেন তাহলে এখন আপনার অনাগত শিশুকে জানতে সময় কাটাতে পছন্দ করতে পারেন। আপনার জন্য আপনার শরীরের কনট্যুরগুলির উপর দিয়ে গ্লাইড করা মৃদু স্ট্রোক দিয়ে আপনার বাম্প ম্যাসেজ করা সম্পূর্ণ নিরাপদ।

    7. আপনার শিশুর সাথে কথা বলুন (Speak to your baby)

    যেহেতু আপনার শিশু এখন আপনার স্বর শুনতে পাচ্ছে, তাই এটি তার সাথে কথা বলা শুরু করার একটি দুর্দান্ত সময়। কথোপকথন অদ্ভুত মনে হলে একটি বই, ম্যাগাজিন বা সংবাদপত্র জোরে জোরে পড়ার চেষ্টা করুন।

    8. প্রসবের পর্যায়গুলি সম্পর্কে জানুন (Learn about stages of labour)

    আপনার প্রসবের অভিজ্ঞতা কেমন হবে বা এটি কতদিন স্থায়ী হবে তা অনুমান করা চ্যালেঞ্জিং। যাইহোক, কী ঘটতে পারে সে সম্পর্কে শেখা আপনার মানসিক অস্থিরতা নিয়ন্ত্রণে করতে সাহায্য করতে পারে।

    9. একটি জন্ম পরিকল্পনা তৈরি করুন (Create a birth plan)

    একটি জন্ম পরিকল্পনার অর্থ হল আপনার ইচ্ছাগুলি আপনার ডাক্তারদের সাথে আলোচনা করা। এটি ডাক্তারকে জানিয়ে দেয় যে আপনি কী উপায়ে সন্তানের জন্ম দিতে চান, আপনি কী করতে চান এবং আপনি কী এড়াতে চান। যাইহোক, জিনিসগুলি কখনও কখনও আপনার পরিকল্পনা অনুযায়ী যেতে পারে বা নাও পারে, তবে একটি লেখা আপনাকে প্রসবের সময় সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম করে।

    10. আপনার সংকোচন সম্পর্কে জানুন (Get to know your contractions)

    আপনি আপনার গর্ভাবস্থার অর্ধেক সময় পেরিয়ে যাওয়ার ঠিক পরে, সময়ে সময়ে আপনার গর্ভের পেশীগুলি শক্ত হয়ে যাওয়া অনুভব করতে শুরু করতে পারেন। এই সংকোচনগুলিকে ব্র্যাক্সটন হিকস সংকোচন হিসাবে উল্লেখ করা হয়। কিন্তু সকলে।এটি নাও অনুভব করতে পারেন এবং আপনি যদি সেগুলি অনুভব করেন, তবে লক্ষ্য করুন আপনি কেমন অনুভব করেন এবং এগুলো কত ঘন ঘন ঘটে, কারণ এটি আপনাকে প্রসবের প্রকৃত লক্ষণ থেকে আলাদা করতে সহায়তা করতে পারে।

    11. শিশুর জন্য জামাকাপড় কিনুন (Purchase clothes for your baby)

    জামাকাপড়, বিছানাপত্র এবং ডায়াপারের মতো অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিসগুলি সম্পর্কে চিন্তা করুন যা আপনার শিশুর প্রয়োজন হবে। অতিপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলি সনাতনের জন্মের আগে কিনে নেওয়া এবং পরে আরও কেনার জন্য কিছু অর্থ আলাদা করে রাখা ভাল। এছাড়াও, মনে রাখবেন যে আপনি উপহার হিসাবে বন্ধু এবং পরিবারের কাছ থেকে প্রচুর পোশাক পেতে পারেন। ব্যবহারের আগে, আপনার নবজাতক শিশুর সংবেদনশীল ত্বককে বিরক্ত না করার জন্য একটি হালকা ডিটারজেন্ট দিয়ে সবকিছু ধুয়ে ফেলুন।

    12. আপনার হাসপাতালের ব্যাগ প্যাক করুন (Pack your hospital bag)

    আপনার নির্ধারিত তারিখের আগে আপনার ব্যাগটি ভালভাবে প্যাক করা একটি ভাল কাজ, কারণ আপনাকে আকস্মিকভাবেই হাসপাতালে যেতে হতে পারে। আপনি দুটি ব্যাগ প্যাক করতে পারেন, একটি প্রসবের জন্য এবং আপনার শিশুর জন্মের কয়েক ঘন্টা পরে, এবং আরেকটি প্রসবোত্তর ওয়ার্ডে থাকার জন্য।

    13. আরও ঘুমান (Get more sleep)

    আপনার যদি রাতে ঘুমাতে অসুবিধা হয় তবে ভাল মানের বালিশে বিনিয়োগ করার চেষ্টা করুন। আপনি ঘুমানোর আগে আপনার হাঁটুর মধ্যে একটি এবং আপনার পেটের নীচে কয়েকটি বালিশ রেখে নিলে আপনাকে আরাম পেতে সাহায্য করতে পারে। এছাড়াও, আপনি এক পাশে ঘুমাতে ভুলবেন না, কারণ এটি মৃতপ্রসবের সম্ভাবনা হ্রাস করে।

    14. গৃহস্থালীর সামগ্রীর মজুদ রাখুন (Stock up on household supplies)

    কেনাকাটা অনেক বেশি হয়ে যাওয়ার আগে সঞ্চয় করুন যেমন পরিষ্কারের পণ্য, টিনজাত খাবার এবং হিমায়িত সবজি। এছাড়াও, পিতৃত্বের প্রথম সপ্তাহগুলির সময় আপনার স্বামীর জন্য খাবারের অতিরিক্ত অংশ প্রস্তুত করুন।

    15. পিঠে ব্যথা এড়িয়ে চলুন (Avoid backache)

    আপনার কী ব্যথা করছে? অনুগ্রহ করে ভারী কিছু ধরবেন না, কারণ এটি আপনার নরম লিগামেন্টে চাপ দেবে। আপনি যদি ইতিমধ্যেই একটি শিশুর মা হন তবে এটি সহজ হতে পারে না। এছাড়াও, আপনার পিঠকে সমর্থন করে এমন একটি প্রসূতি বেল্টের জন্য আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

    16. হাসপাতালটি দেখুন (Check out the hospital)

    আপনি যদি হাসপাতালে আপনার শিশুকে নেওয়ার পরিকল্পনা করেন তবে প্রসূতি ইউনিট ব্যক্তিগতভাবে বা অনলাইনে ভ্রমণের প্রস্তাব দেয় কিনা তা খুঁজে বের করা ভাল। ইতিমধ্যে, আপনি প্রথম প্রসবকালীন হাসপাতালে গেলে কী ঘটবে তা জানুন।

    17. জন্মের জন্য প্রস্তুতি নিন (Prepare for the birth)

    নিশ্চিত করুন যে আপনি আপনার ফোনে, আপনার ডাক্তার এবং হাসপাতাল বা জন্ম কেন্দ্রে সমস্ত উল্লেখযোগ্য নম্বর সংরক্ষণ করেছেন। আপনার পোষা প্রাণী এবং বড় বাচ্চাদের যত্ন নেওয়ার জন্য কেউ যদি আপনার কাছে থাকে তবে তার ব্যবস্থা করুন। তারপর প্রসব শুরু হলে আপনি নিজের এবং আপনার শিশুর প্রতি মনোনিবেশ করতে সক্ষম হবেন।

    18. বুকের দুধ খাওয়ানোর জন্য প্রস্তুত হন (Get ready for breastfeeding)

    বুকের দুধ খাওয়ানো কীভাবে কাজ করে এবং এর উপকারিতা সম্পর্কে আপনি যদি আরও জানেন তবে এটি আপনার এবং আপনার শিশুর জন্য ভাল কাজ করার সম্ভাবনা বেশি। কিছু হাসপাতাল গর্ভাবস্থায় বুকের দুধ খাওয়ানোর ক্লাস নির্ধারণ করে যা আপনাকে আসল জিনিসের জন্য প্রস্তুত করতে সাহায্য করতে পারে।

    19. স্বাভাবিকভাবে শ্রম আনতে সাহায্য করুন (Help to bring labour naturally)

    কখন শ্রম শুরু হয় তা আপনি কখনই জানতে পারবেন না। যাইহোক, যদি আপনি অতিরিক্ত দেরি হয়ে থাকেন এবং বিরক্ত বোধ করেন, তবে অনেক মা প্রাকৃতিক উপায়ে শ্রম দেওয়ার জন্য শপথ করেন, যেমন হাঁটা, যৌনতা, আকুপাংচার বা তরকারি খাওয়া।

    20. আপনার শিশুর বিকাশ অনুসরণ করুন (Help to bring labour naturally)

    আপনার শিশুর বিকাশের বিষয়ে নিয়মিত আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। এছাড়াও আপনি ইন্টারনেট ব্রাউজ করতে পারেন, যা আপনাকে গর্ভাবস্থা এবং আপনার শিশুর বিকাশ সম্পর্কে জানতে সাহায্য করবে।

    আপনার তৃতীয় ত্রৈমাসিকের সময় খাওয়া খাবার (Foods To Eat During Your Third Trimester in Bengali)

    আপনার শিশুর বৃদ্ধি এবং বিকাশ নির্ভর করবে আপনি কী খান, তাই তৃতীয়-ত্রৈমাসিকের খাদ্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আপনার প্রতিদিন প্রায় 200 অতিরিক্ত ক্যালোরি এবং পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন, ফাইবার এবং খনিজগুলির প্রয়োজন হবে। এখানে কিছু জিনিস রয়েছে যা আপনি আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন:

    1. মাংস, দুগ্ধজাত দ্রব্য, ডিম, গমের ভুসি এবং মটরশুটি জাতীয় খাবারে প্রচুর পরিমাণে আয়রন রয়েছে।

    2. খাদ্য প্রোটিন সমৃদ্ধ, যেমন টফু, লেবু, মাছ এবং মাংস। গর্ভাবস্থার শেষ ত্রৈমাসিকে আপনার শরীরের প্রায় 70/গ্রাম প্রোটিনের প্রয়োজন হবে।

    3. DHA সমৃদ্ধ খাবার যেমন দুধ, ডিম এবং ফল শিশুর মস্তিষ্কের বিকাশে সাহায্য করে।

    4. ফলিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ খাবার, যেমন পালং শাক এবং লেটুসের মতো সবুজ শাক, ভ্রূণের সঠিক বৃদ্ধি নিশ্চিত করে এবং কম ওজনের জন্মের ঝুঁকি কমায়।

    5. দুধের পণ্য যেমন পনির, টফু এবং দইয়ের মতো খাবারে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম থাকে। গর্ভাবস্থায় আপনার প্রায় 800 মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম প্রয়োজন।

    6. ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার, যেমন বাদাম, কুমড়ার বীজ, বার্লি, ওটস, মটরশুটি এবং আর্টিচোক, ক্যালসিয়াম শোষণ করতে এবং শরীরের ক্ষতিগ্রস্থ টিস্যুগুলি মেরামত করতে সহায়তা করে।

    7. ভিটামিন C, B6 এবং B12 সমৃদ্ধ খাবার কমলালেবু, কলা, মিষ্টি চুন, গাজর, ছোলা এবং বাদাম পাওয়া যায়।

    8. ফিট এবং শাকসবজিও প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহ করতে পারে এবং গর্ভাবস্থার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত।

    তৃতীয় ত্রৈমাসিকে এড়িয়ে চলা খাবার (Foods To Avoid In the Third Trimester in Bengali)

    3য় ত্রৈমাসিকে এড়ানোর জন্য কিছু খাবার অন্তর্ভুক্ত:

    1. লবণ (Salt)

    গর্ভাবস্থায় নোনতা খাবার যেমন আলুর চিপস এবং ভাজা খাওয়া এড়িয়ে চলুন।

    2. কাঁচা শাকসবজি (Raw Vegetables)

    কাঁচা বা কম রান্না করা সবজি গ্যাসের সমস্যা হতে পারে। আপনি তাদের এড়ানোর চেষ্টা করলে এটি সাহায্য করবে। এছাড়াও, সেগুলি খাওয়ার আগে সবজি রান্না করা নিশ্চিত করুন।

    3. মসলাযুক্ত খাবার (Spicy Food)

    গর্ভাবস্থায়, মশলাদার খাবার বদহজম এবং অম্বল হতে পারে। তাই শেষ ত্রৈমাসিকে এড়িয়ে চলাই ভালো।

    উপসংহার (Conclusion)

    আপনার এবং আপনার শিশুর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এই গর্ভাবস্থার টিপসগুলিতে নিজেকে শিক্ষিত করতে ভুলবেন না। যাইহোক, যদি আপনি কোন অস্বাভাবিক উপসর্গ অনুভব করেন তবে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা ভাল। একটি সুষম খাদ্য খান, ভাল ঘুমান এবং নিরাপদ প্রসবের জন্য নিয়মিত কিছু প্রসারিত করুন। আপনার বাচ্চা কিছু সময়ের মধ্যে আপনার কোলে থাকবে।

    Tags

    Third trimester symptoms in Bengali, Pregnancy third trimister tips in Bengali, Prepare for birth in Bengali, Food to avoid in third trimester in Bengali, Best food for third trimester in Bengali, Top 10 Tips for the Third Trimester of your Pregnancy in English

    Is this helpful?

    thumbs_upYes

    thumb_downNo

    Written by

    Nandini Majumdar

    Get baby's diet chart, and growth tips

    Download Mylo today!
    Download Mylo App

    RECENTLY PUBLISHED ARTICLES

    our most recent articles

    Start Exploring

    About Us
    Mylo_logo

    At Mylo, we help young parents raise happy and healthy families with our innovative new-age solutions:

    • Mylo Care: Effective and science-backed personal care and wellness solutions for a joyful you.
    • Mylo Baby: Science-backed, gentle and effective personal care & hygiene range for your little one.
    • Mylo Community: Trusted and empathetic community of 10mn+ parents and experts.

    Open in app